e Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান বা অনলাইনে ই পর্চা

e Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান: ভূমি সংক্রান্ত যেকোন কাগজপত্র সংগ্রহ করা অনেক সময়ের ব্যাপার এবং অনেক কষ্ট। কিন্তু এখন থেকে ই পর্চা (e-porcha) সহ ভূমি সংক্রান্ত প্রায় সকল কিছু অনলাইনে পাওয়া যাবে।

তাই অনলাইন ভূমি সেবা ই পর্চা (E-Porcha) খতিয়ান অনুসন্ধান সম্পর্কে আজ আমরা আপনাকে কিছু গুরুত্বপূর্ন তথ্য প্রদান করবো। আশা করি আপনি এই বিষয় গুলো জানতে পারলে ভূমি বিষয়ে বা অইলাইনে ইপর্চা খতিয়ান অনুসন্ধানসহ ভূমি সেবা গ্রহণ করতে সহায়ক ভূমিকা হিসেবে কাজ করবে।

e Porcha

ভূমি মন্ত্রণালয় গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার  ‍ভূমি সেবাকে আরো এগিয়ে নিতে ই-নামজারি, ভূমি উন্নয়ন কর, নামজারি খতিয়ান,ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড,আর এস খতিয়ান, রেন্ট সার্টিফিকেট মামলা,বাজেট ব্যাবস্থাপনা,অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থাপনা,উত্তরাধিকার অ্যাপ, ই-বুক অ্যাপ সহ অনলাইয়ে পর্চা বা খতিয়ান অনুসন্ধানের জন্য নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

E Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান

E Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান- যদি এই লেখাটি আপনাদের কাজে আসে অবশ্যই আপনাদের বন্ধুদের শেয়ার করে বিষয় গুলো জানিয়ে দিবে। আর কথা না বাড়িয়ে এবার শুরু করা যাক-

eporcha gov bd

eporcha gov bd এটি ই-পর্চা সংক্রান্ত একটি সরকারি ওয়েব পোর্টাল। এই ওয়েবসাইট ভিজিটের মাধ্যমে আপনি অতি সহজে জমির মালিকানাসহ খতিয়ান ও দাগ সম্পর্কিত বিষয় জানতে পারবেন। আপনি www eporcha gov bd ওয়েবসাইট বিশ্বের যেকোন প্রান্ত থেকে ভিজিট করতে পারবেন। কোন সমস্যা ছাড়া www eporcha gov bd ওয়েবসাইট ভিজিট করুন এবং জমি সংক্রান্ত বিষয় এখন ঘরে বসেই জেনে নিন।

E Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান

E Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান বা অনলাইনে পর্চা দেখার জন্য আপনাকে নিচের ধাপ গুলো ফলো করতে হবে

ই-পর্চা বা খতিয়ান অনুসন্ধানের মাধ্যমে আপনি নিজেই দেখুন আপনার জমির প্রয়োজনীয় কাগজাদি। খতিয়ান অনুসন্ধান এর মাধ্যমে আপনার জমির পর্চা আপনি নিজেই দেখতে পারেন খুব সহজে। আপনার হাতে থাকা স্মার্টফোনের মাধ্যমেই আপনি গ্রহন করতে পারেন এই অনলাইন ই-পর্চা আপনার খতিয়ানের কপি।

আরো পড়ুনঃ এস এ পর্চা বের করার নিয়ম

eporcha gov bd খতিয়ান

প্রত্যেক খতিয়ানকে পৃথক পৃথকভাবে নির্বাচন করার জন্য প্রত্যেকটি খতিয়ানের বিপরীতে একটি ইউনিক নাম্বার দেওয়া হয়ে থাকে। যার ফলে খতিয়ান নাম্বার ব্যবহার করে খুব সহজে খতিয়ানটি বের করা সম্ভব। আমরা জানি সাধারণত একটি মৌজার মধ্যে একই মালিকের যতগুলো দাগের ভূমি থাকে সকল দাগ একত্রিত করে একটি খতিয়ানে লিপিবদ্ধ করা হয়।

খতিয়ান বা পর্চা কত প্রকার?

বাংলাদেশে মূলত চার প্রকার খতিয়ান বিদ্যমান। নিচে আপনাদের সুবিধার্থে এ চারটি প্রকারের নাম উল্লেখ করলাম।

  • সিএস খতিয়ান। (Cadastral Survey)
  • এসএ খতিয়ান । (State Acquisition Survey)
  • আরএস খতিয়ান। (Revisional Survey)
  • বিএস খতিয়ান/সিটি জরিপ। (City Survey)

খতিয়ান অনুসন্ধানের জন্য প্রথমে আপনার মোবাইলে বা আপনার কম্পিউটারে প্রথমে একটি ব্রাউজার অপেন করত হবে। অনলাইনে পর্চা দেখতে এখানে ক্লিক করুন www.land.gov.bd অতপর নাগরিক কর্নারে ক্লিক করে খতিয়ান অনুসন্ধান করুন। খতিয়ান অনুসন্ধানে পাশে থাকা মানচিত্র বা ম্যাপ থেকে আপনার জেলা নির্বাচন করুন আপনার স্বীয় জেলায় ক্লিক করুন।

খতিয়ান অনুসন্ধানের জন্য আপনি কোন খতিয়ান অনুসন্ধান করছেন, আর.এস পর্চা, এস.এ, বি.এস কোন পর্চা খুঁজতে চান সেটা সিলেক্ট করুন। এবার উপজেলা ও মৌজার নাম বা মৌজার জে.এল নাম্বার সিলেক্ট করে খতিয়ান নাম্বর অথাব অত্র খতিয়ানের দাগ নাম্বার লিখুন। যদি খতিয়ানের দাগ বা খতিয়ান নাম্বার জানা না থাকে তবে উক্ত খতিয়ানের মালিকের নাম অথাবা মালিকের পিতার নাম লিখুন।

ই পর্চা খতিয়ান (eporcha gov bd khatian)

আপনি যদি ই-পর্চা খতিয়ান যাচাই অথবা জমির রেকর্ড যাচাই অনলাইন করতে চান। ই পর্চা খতিয়ান ভূমি মন্ত্রণালয়ের একটি ডিজিটাল সাভির্সের নাম। যার মাধ্যমে ঘরে বসেই ই পর্চা খতিয়ান সংগ্রহ করতে পারবেন। উপরে উল্লেখিত এ ৪ (চার) প্রকারের খতিয়ানই অনলাইন থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন।

জমির দাগ নম্বর থেকে খতিয়ান বের করার উপায়

কেবলমাত্র জমির দাগ নম্বার জানা থাকলেও আপনি আপনার খতিয়ান অনলাইন থেকে বের করতে পারবেন। এর জন্য আপনি নিচের ধাপগুলো অনুস্মরণ করে অনলাইন খতিয়ান বের করতে পারবেন।

খতিয়ান অনুসন্ধান

খতিয়ান অনুসন্ধান
  • প্রথমে ভিজিট করুন https://eporcha.gov.bd/khatian-search-panel
  • বিভাগ নির্বাচনঃ এখানে বিভাগ নির্বাচন করতে হবে।
  • জেলা নির্বাচনঃ এখানে আপনার জেলা নির্বাচন করুন।
  • খাতিয়ান টাইপ নির্বাচনঃ কোন ধরনের খতিয়ান বের করতে চান তা এখান থেকে নির্বাচন করুন।
  • উপজেলা নির্বাচন করুনঃ কোন উপজেলার অন্তর্ভুক্ত তা এখানে নির্বাচন করুন।
  • মৌজা নির্বাচন করুনঃ আপনার মৌজার নাম দিন এখানে।
  • খতিয়ান নংঃ আপনি যে জমির খতিয়ানটি বের করতে তার নম্বরটি এখানে দিন।
  • দাগ নাম্বারঃ যদি দাগ জানা থাকে এখানে দিন।
  • মালিকানা নামঃ জমির মালিকের নাম জানা থাকলে এখানে দিন।
  • পিতা/স্বামীর নামঃ পিতা/স্বামীর নাম জানা থাকলে তা এখানে নির্বাচন করুন।
  • ক্যাপচা কোড লিখুনঃ এখানে উল্লিখিত ক্যাপসা কোডটি হুবহু ফাঁকা জায়গাতে টাইপ করুন।
  • সর্বশেষে, উপরে প্রদানকৃত সকল তথ্য সঠিক থাকলে, অনুসন্ধান বাটনে ক্লিক করুন।

আরো দেখুনঃ ভূমি উন্নয়ন কর বা খাজনা রশিদ অনলাইন থেকে সংগ্রহ

অবশ্যই খতিয়ানের মালিক বা পিতার নাম সঠিক বানানে লিখুন। খতিয়ান অনুসন্ধানে সব শেষে নিচের দেওয়া ক্যাপচা কোড লিখুন এবার অনুসন্ধান করুন। পরবর্তী ধাপে আপার এন.আই.ডি নাম্বার কার্ডে থাকা জন্ম তারিখ তারপর উক্ত কার্ড দ্ধারা রেজিষ্টেশন করা মোবাইল নাম্বার দিয়ে যাচাইয়ে ক্লিক করুন । এবার খতিয়ান অনুসন্ধানে নিচের যোগফল লিখুন।

পর্চা কি ? ই-পর্চা বলতে কি বোঝায় পর্চার প্রয়োজনীয়তা কেমন

পর্চা বা খতিয়ান হলো জমির মালিকের মালিকানা প্রমাণের একটি মাধ্যম। ভূমি ক্রয়ের পরে রেজেষ্টারি কার্যক্রম শেষে নামজারির মাধ্যমে যে জমির মালিকের নামে যে খতিয়ানের কপি প্রধান করা হয় সেটা কে পর্চা বা খতিয়ানের কপি বলা হয়।

E-Porcha ই পর্চা কি?

E Porcha (ই-পর্চা) বাংলাদেশ সরকারের এমন একটি অনলাইন পোর্টাল যেখান থেকে আপনি সহজেই জমির খতিয়ান ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে পারবেন। তারই সাথে সাথে মালিকানাও যাচাই করতে পারবেন। ই পর্চা সেবাটি ব্যবহার করতে আপনি প্রথমে লগিন করতে হবে। লগিন করার পর আপনি জমি সংক্রান্ত যেকোন বিষয় যেমন- ই পর্চা চেক, ই খতিয়ান যাচাই করা সম্ভব। এটি বাংলাদেশ ভূমি মন্ত্রণালয়ের একটি ডিজিটাল সেবা।

E Porcha ই-পর্চার সুবিধা

EPorcha (ই পর্চা) এর ওয়েবসাইট ভিজিট করে জমির মালিকানা জানতে পারবেন। তার জন্য আপনার নিকট জমির খতিয়ান নাম্বার অথবা দাগ নাম্বার থাকতে হবে। তাছাড়াও শুধুমাত্র জমির মালিকের নাম বা পিতার নাম জানা থাকলেও আপনি ঐ মালিকের সকল খতিয়ান বের করতে পারবেন।

অনলাইন ই পর্চা

EPorcha ওয়েবসাইট ভিজিট করার পর নাগরিক প্যানেল থেকে লগিন অপশন ব্যবহার করে লগিন করার মাধ্যমে আবেদন তথ্য যাচাই করতে পারবেন। ইতিপূর্বে অনলাইন ই-পর্চার জন্য আবেদন না করেন তবে নাগরিক কর্ণার থেকে আবেদন করুন।

eporcha gov bd login (ই পর্চা লগইন)

www.eporcha.gov.bd ওয়েবসাইট ভিজিট করে ই পর্চা Login করুন। তারপর আপনার মোবাইল নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগিন করুন এবং ভূমি সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যাদি সংগ্রহ করুন। আপনি যদি পাসওয়ার্ড ভুলে যান, তাহলে পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন অপশন হতে পাসওয়ার্ড রিসেট করতে পারবেন। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আপনি লগিন বাটনে ক্লিক করুন।

জমির মালিক বের করবো কি ভাবে ?

জমির মালিক জানতে হলে বা জমির মালিক বের করতে হলে ই-পর্চা ওয়েব সাইটে বা খতিয়ান অনুসন্ধান সার্চ করে আপনি খুব সহজেই জমির মালিক বের করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই কিছু বিষয় আপনার জানা থাকতে হবে। যেমন খতিয়ান অনুসন্ধানে গিয়ে নির্দিষ্ট জায়গায় উপজেলা জেলা এবং মৌজার নাম লিখতে হবে। তার পরে রেকর্ডিও মালিকের সঠিক নাম অথবা রেকডিও মালিকের পিতার সঠিক নাম, এগুলো দিয়ে সার্চ করলে আপনি ঐ নামে কতো গুলো খতিয়ান আছে পেয়ে যাবেন। আবার জমির দাগ অথবা খতিয়ান লিখে সার্চ করে শুধুমাত্র ঐ খতিয়ান বা দাগের মালিকের নাম দেখাবে।

এখন ঘরে বসেই আপনি জমির পর্চার সার্টিফাইড কপি বা জমির যে কোনো সার্টিফাইড কপি পেয়ে যান।
এখন ঘরে বসেই আপনি জমির পর্চার সার্টিফাইড কপি বা জমির যে কোনো সার্টিফাইড কপি পেতে পারেন। আপনি আপনার কাজের চাপে কিংবা অফিসের কাজের চাপে  ‍ভূমি সেবার জন্য ভূমি অফিসে যে পারছেন না। কোনো অসুবিধা নেই খতিয়ান অনুসন্ধানে ই-পর্চা ওয়েব সাইটে গিয়ে আবেদন করে আপনি ঘরে বসেই আপনার সার্টিফাইড কপি পেতে পারেন। আপনি শুধু ডাক যোগে খতিয়ানের সার্টিফাইড কপি পেতে চান লিখে আবেদন করুন। জরুরী বিত্তিতে পেতে আবেদনের সময় জরুরী অপশনে ঠিক চিহ্ন দিয়ে দিন।

ই পর্চা আবেদনের পেমেন্ট পদ্ধতি

উপায় এপের মাধ্যমে কিভাবে পেমেন্ট করবেন তা নিচে তুলে ধরা হলো:

eporcha payment by upay
উপায় এর মাধ্যমে পেমেন্ট

জমির পর্চা ডাউনলোড | জমির খতিয়ান ডাউনলোড

অনলাইনে জমির খতিয়ান অনুসন্ধান করে, আপনি চাইলে ই-পর্চা ডাউনলোড করে অনলাইন কপি সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে এটি সার্টিফাইড কপি হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে না। বরং সার্টিফাইড কপি ডাউনলোড করার জন্য খতিয়ান তালিকার নিচে ‘খতিয়ান আবেদন’ লেখাটিতে ক্লিক করে খতিয়ানের সার্টিফাইড কপির জন্য আবেদন করতে হবে।

একটি ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য দিয়ে, মোবাইল ভেরিফিকেশন করে ও সার্টিফাইড কপির জন্য নির্ধারিত ফি পরিশোধ করে খতিয়ানের সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ করতে পারবেন।

ভূমি সেবার হটলাইন নাম্বার

গ্রামের দেওয়ানি কিংবা মাতব্বরের কাছে কিংবা পরিচিত সার্ভেয়ারের কাছে কিংবা মুহরির কাছে থেকে সঠিক পরামর্শ না পেলে হতাশ হবার কোনো কারণ নেই । আপনি ভূমির হটলাইন সেবা নিতে পারেন।

আরো পড়ুন: অনলাইনে জমির খাজনা দেওয়ার নিয়ম

বাংলাদেশ এখন ডিজিটাইলাইজেশনে পরিণত হয়েছে। এর ফলে সবকিছু এখন হাতের মুটোয়। এরই ধারাবাহিকতায় ভূমি মন্ত্রণালয়ও ব্যৃতিক্রম নয়। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয় ভূমি সংক্রান্ত বিষয়াদি নিয়ে, জনসাধারণের হয়রানি কথা মাথায় রেখে, বর্তমানে একটি হটলাইন নাম্বার চালু করেছে। আপনি ১৬১২২ এ নাম্বারে কল করে ভূমি সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য খুব সহজে জানতে পারবেন।

ই পর্চা সংক্রান্ত FAQ’S

জমির পর্চা কি?
সরকার নির্ধারিত জমিজমার যাবতীয় বিবরণসহ সরকারি দলিল বা কাগজকে খতিয়ান বলে। আর এ খতিয়ানে বিদ্যমান রয়েছে মৌজার দাগ মোতাবেক জমির মালিকের নাম, পিতার নাম, মালিকানা সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য, ঠিকানা, জমির বিষদ বিবরণ এবং সীমানা ইত্যাদির হিসাব। উল্লেখিত খতিয়ানের যাবতীয় তথ্যাদি সংবলিত কাগজটিকেই পর্চা বলা হয়।

জমির ই-পর্চা কিভাবে দেখা যায়?
ভিজিট করুন https://eporcha.gov.bd/khatian-search-panel তারপর ফরমটি যথাযথভাবে পূরণ করে সাবমিট করার মাধ্যমে ই-পর্চা খা যাবে।

ভূমি সেবায় হটলাইন নাম্বারে কল করে e-porcha সহ ভূমি সংক্রান্ত যে কোনো পরামর্শ আপনি আপনার ঘরে বসেই- ১৬১২২ নাম্বারে কথা বলে জানতে পারেন।

14 thoughts on “e Porcha খতিয়ান অনুসন্ধান বা অনলাইনে ই পর্চা”

  1. আব্দুল ওয়াদুদ

    ভাই আপনার পোষ্টটা আমার কাজে আসছে ভাই অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাই।

      1. সায়েম

        অনলাইনে বর্তমান খতিয়ান বের হচ্ছে না কেন ভাই সার্ভার ইরোর 500 দেখাচ্ছে বিকল্প কোন লিং থাকলে বললে ভাই উপকার হত।

        1. বিকল্প কোন লিংক তো নেই তবে একটু অপেক্ষা করুন অবশ্যই সার্ভার ইরোর সমস্যাটি সমাধান হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।

  2. মোঃ জামাল হোসেন

    আমি কুমিল্লা সদর থেকে বলছি আমার জায়গার মৌজার নাম অনলাইনে পাচ্ছি না।

    1. এই মৌজা এখন পর্যন্ত হয়তো অনলাইন হয় নাই আপনি অপেক্ষা করুন পাবেন পরবর্তীতে

  3. md nasir uddin

    ভাই আপনার পোস্টটা তো আমার কাছে খুব ভালো লাগলো কিন্তু বর্তমান এস এ খতিয়ানে অনলাইন কপিতে কোন হিস্যা বা ভাগ দেখা যায় না কিন্তুু কেন
    যদি একটু বুঝিয়ে বলতেন তাহলে খুব ভালো হয়

    1. বর্তমান কর্তৃপক্ষ এ সুযোগ দিচ্ছে হয়তো পরবর্তীতে দিবে অপেক্ষায় থাকুন, ধন্যবাদ।

  4. (১) আমার বাবা শহরে আসার পর কত শতাংশ জমি নিয়েছে আমরা সঠিক করে জানি নাহ তিনি ইন্তেকাল করেছেন এখন অনেক দলিল এর মূল কপি + কিছু দলিল নাহ পেয়ে নকল তুলেছে তার নামে আর কোন জমি রয়েছে কি নাহ তা এখন জানার উপাই কী ?

    বাবা যখন শহরে আসেন। তখন আমি অনেক ছোট ৪/৫ বছর। এখন আমার বয়স ২৫+ তিনি ২০১৮ সালে ইন্তেকাল করেন। তাই তিনি সম্পুন দলিল ও কত শতাংশ জমি নিয়েছে তা বলে যেতে পারের নাই এখন তার ফাইল ঘাঁটাঘাঁটি করার পর অনেক দলিল পেয়েছি + অনেক দলিলি না পেয়ে নকল তুলেছি তার নামে আর কোন জমি আছে কি না তা এখন চেক করতে চাচ্ছি । কি ভাবে কি করব বিস্তারিত জানতে চাই।

  5. মারুফ

    ই-পর্চার নিয়ম খুব ঘন ঘন পরিবর্তন হচ্ছে এবং আপডেট হচ্ছে, আপডেট হওয়াটা ভালো।
    কিন্তু আগে খতিয়ানের মাধ্যমে দাগ নাম্বার পাওয়া যেত ।
    এবং দাগ নাম্বারের মাধ্যমে খতিয়ান নাম্বার পাওয়া যেত কিন্তু বর্তমানে এটি সম্পূরক না।
    বিভিন্ন মৌজার সিএস এবং এস এ, দীর্ঘদিন যাবত প্রদর্শন করা হয় না কিন্তু একসময় অনলাইনে ছিল।
    এক সময় এক নম্বর খতিয়ানের তথ্য ও পাওয়া যেত এখন আর পাওয়া যায় না।
    ভূমি অফিসে দাগ নম্বর এবং খতিয়ান নম্বর তল্লাশির নামে হাদিয়া অব্যাহত আছে।
    আমার ধারণা ভূমি অধিদপ্তর যদি সক্রিয় হয় তাহলে ইউনিয়ন উপজেলা জেলা ভূমি অফিস সমূহ তাদের কার্যক্রম আরো একটু ত্বরান্বিত করবে।
    আরো ও একটু বিষয় বলে রাখি সার্টিফিকেট কপি ১০০ টাকা ঠিক আছে।
    কিন্তু অনলাইন কপি ১০০ টাকা , এটা অনেকটা তল্লাশির হাদিয়ার মতোই হয়ে যায়।

  6. ভূমি মন্ত্রণালয় এর সাইট এখনো আপডেট চলামান। আর এই আপডেট আমাদের জন্য তথা জনগনের জন্য ভালো । এই আর্টিকেল থেকে অনেক কিছুেই জানার আছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top