ভূল করেও গুগলে সার্চ করবেন না যে ১০ জিনিস

গুগলে সার্চ করবেন না এই ১০ বিষয়

Google Search – গুগলে সার্চ করবেন না: বর্তমান ইন্টারনেট জগতে আমাদের অনেক কাজ সহজ হয়ে গেছে। যেকোন বিষয় জানতে চাইলে গুগুলের আশ্রয় নেই এবং হুট করে সার্চ করি। কিন্তু না জেনে গুগলে সার্চ করতে গেলে অনেক বিপদ ঘটতে পারে। কেউ সার্চ করেন খাবারের রেসিপি কেউবা আবার অনলাইন ব্যাংকিং সেবা সম্পর্কে অথবা অনলাইনে নানা ওষুধ।

যাঁরা সর্বক্ষেত্রে গুগলের ওপর নির্ভরশীল, তাঁদের মনে রাখা উচিৎ এ সকল কনটেন্ট বা আর্টিকেল কিন্তু গুগল নিজে তৈরি করে না। গুগল কেবল একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, যেখানে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের তথ্য দেখা যায়। তাই গুগলে যে সকল তথ্য যে সঠিক ও গুগল কর্তৃক নির্মিত বা নির্ভুল হবে, এটা মনে যুক্তিসঙ্গত নাও হতে পারে।

তবে এমন কিছু বিষয় রয়েছে যা গুগলে মোটেই সার্চ করা উচিত নয়। এগুলো সার্চ করে আপনার বড়সড় ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। আসুন জেনে নেই এমন ১০টি জিনিস সম্পর্কে:

আরও পড়ুন: গুগলের সর্বোচ্চ বেতন কত?

বোমা বানানোর কৌশল: ভুলেও গুগুলে বোমা তৈরির কৌশল সার্চ করতে যাবেন না। যদি বিষয়টি সার্চ করেন তাহলে জেনে রাখুন আপনাকে জেলে যেতে হবে। বোমা তৈরির কৌশল সার্চ করার সাথে সাথে আপনার আইপি এড্রেস দেখে সুরক্ষা বিভাগসমূহকে গুগল অবগত করবে। সাথে সাথে আপনার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে যথাযথ কর্তৃপক্ষ। এর ফলস্বরূপ আপনি কারাদণ্ড ভোগ করতেও পারেন।

অনলাইন ব্যাংকিং: আপনি যদি কোন ব্যাংকে লেনদেন করেন অবশ্যই তাদের ওয়েবসাইটটি মনে রাখবেন। সঠিক ওয়েবসাইট বা ইউআরএল বা লিংক ছাড়া গুগলে সার্চ করে তাদের সাইট বা সেবা সম্পর্কে জানার চেষ্টা ভুলেও করতে যাবেন না।

অনেক সময় ব্যাংকের ওয়েবসাইটের মত অবিকল ফিশিং সাইট বা ভুয়া সাইট তৈরি করে রাখে হ্যাকাররা। আপনি ভুলেও এই ধরনের কোন সাইটে গিয়ে নিজের আইডি-পাসওয়ার্ড দিয়ে ফেললেই সর্বনাশ। তাই গুগলে অনলাইন ব্যাংকিং সম্পর্কিত যে কোন তথ্য সার্চ না করাই শ্রেয়।

কাস্টমার কেয়ার বা হেল্পলাইন নম্বর: গুগলে কখনোই কাস্টমার কেয়ার বা হেল্পলাইন নম্বর খুঁজবেন না। কারণ ক্রাইম হ্যাকাররা অনলাইনে বিভিন্ন সেবার ভুয়া নম্বর দিয়ে রাখে। যার ফলে ফোন করে আপনি হতে পারেন প্রতারিত। এই প্রতারণা থেকে পরিত্রাণ পেতে সতর্ক থাকুন।

অ্যাপ ও সফটওয়্যার ডাউনলোড: কোন প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার বা অ্যাপস গুগলে সার্চ করে প্রতারণার ফাঁদে পড়তে পারেন। এন্ড্রয়েড অ্যাপ বা সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে সরাসরি অ্যান্ড্রয়েডের জন্য গুগল প্লে অথবা আইফোনের জন্য অ্যাপ স্টোরে গিয়ে ডাউনলোডে করবেন।

গুগলে অনুসন্ধান করে ভুলেও কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করবেন না। কারণ, হ্যাকার তাদের সৃজনশীল কার্যকলাপ দিয়ে তৈরি করা অনেক অ্যাপস বা সফটওয়্যার ডাউনলোডের জন্য প্রলোভন দেখিয়ে, আপনার গুরুত্বপূর্ণ ডাটা বা তথ্য নষ্ট করে ফেলতে পারে। এতে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য চুরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ওষুধ: কোন রোগের জন্য কী ঔষুধ তা জানতে গুগল মোটেই ব্যবহার করা উচিত নয়। আমাদের মনে রাখতে হবে, সর্বদা রোগের কী লক্ষণ এবং রোগের ঔষুধ সম্পর্কে সঠিক তথ্য দেয় না গুগল। গুগলে সার্চ করা ঔষুধ ব্যবহার করে আপনি বিপদে পড়তে পারেন। তাই স্পর্শকাতর বিষয়সমূহে গুগলকে বিশ্বাস না করাটাই ভালো।

শেয়ার বাজারের তথ্য: ঔষুধের মতই আর্থিক বিষয়গুলোতেও গুগলের ওপর নির্ভর করা মোটেও ঠিক হবে না। বিনিয়োগের বা পার্সোনাল ফাইন্যান্স ক্ষেত্রে গুগল সার্চের তথ্যের ওপর নির্ভর না করাটাই ভালো। তাই শেয়ার বাজার সম্পর্কে গুগলের নিকট ভুলেও জানার চেষ্টা করবেন না।

সরকারি তথ্য: সরকারি বিভিন্ন ওয়েবসাইটের ভুয়া তথ্য বা ফিশিং সাইট তৈরি করে রাখে হ্যাকাররা। যার ফলে আপনি ঐ ভুয়া সাইটে গিয়ে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য শেয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। তাই আপনি সঠিক ওয়েবসাইট না জেনে সরকারি কোন তথ্যের জন্য গুগল সার্চ করা কোন সাইটে না যাওয়াই ভালো।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম: সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম (যেমন- ফেসবুক, টুইটার, ইন্সটাগ্রাম, পিন্টারেস্ট) ওয়েবসাইট কখনো গুগলে সার্চ করবেন না। সরাসরি সেই ওয়েবসাইটের লিংক টাইপ করে তারপর লগিন করবেন। গুগল সার্চের মাধ্যমে গেলে আপনি ফিশিং সাইটে চলে যেতে পারেন। ফলস্বরূপ আপনি ভুয়া কোনো ওয়েবসাইটে লগিনের জন্য চেষ্টা করবেন। আর তাতে আপনার সাধের একাউন্টটি হ্যাক হতে পারে।

গুগলে যেকোন অফারের খোঁজা: যেকোন ওয়েবসাইটের অপার সম্পর্কে জানতে চেয়ে সার্চ দেন গুগলে। কিন্তু এটা মোটেও ঠিক না। হ্যাকাররা এসব অফারের ফাঁদে আপনাকে ফেলে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হাতিয়ে নিতে পারে। আপনি যদি কোন কিছু ক্রয় বা অপার সম্পর্কে জানা খুবই প্রয়োজন হলে, আপনি সরাসরি তাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করবেন।

ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস: অনেকেই গুগলে গিয়ে ‘ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস’ অনুসন্ধান করেন। গুগলে ‘ফ্রি অ্যান্টিভাইরাস’ সার্চ করলে অসংখ্য নকল এন্টিভাইরাস নামীয় সফটওয়্যার পাবেন, যা আপনার ডিভাইসের জন্য ম্যালওয়্যারের মাধ্যমে ক্ষতির কারণ হতে পারে। আসল-নকল বের করা অনেকের ক্ষেত্রে কঠিন হয়ে দাড়ায় গুগলে।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button